শ্রদ্ধেয় হুমায়ূন আহমেদ,
আমি জানি না এই চিঠি আকাশে উড়ে আপনার কাছে পৌঁছবে কিনা। তবুও লিখছি।
জন্মদিনের শুভেচ্ছা নিবেন।শুধু বাংলা নয়, বিশ্বসাহিত্য যতদিন বেঁচে থাকবে, আপনি বেঁচে থাকবেন আমাদের সবার হৃদয়ের মাঝে।আমরা সবাই আপনাকে ভালোবাসি। শুধু ভালোবাসি বললে কম বলা হবে, আমরা আপনাকে প্রচন্ড ভালোবাসি।
ভালো থাকবেন। আশা করি পরকালে আপনার সাথে দেখা হবে।
বিশ্ববাসীর হয়ে,
ফারহাত মৃত্তিকা
অন্যকথা
হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুর পর তাঁর প্রথম জন্মবার্ষিকীতে এই চিঠি লেখা।আমার প্রবল ইচ্ছা ছিল এই চিঠিটা গ্যাস বেলুনে করে উড়িয়ে তাঁর কাছে আকাশে পাঠিয়ে দিবো।কিন্তু সেটা পারলাম না।তবুও একটা কাজ করেছি। আমি হুমায়ুন আহমেদের বই ‘হিমু মামা’ পড়ে জেনেছি, হিমুরা নাকি গর্ত করে থাকে। এটা পড়ে আমি আমাদের বাসায় একটা মাঝারি সাইজের গর্ত করেছি হিমু সেজে।আমার কাজ দেখে দাদু বলেছিল, ‘হুমায়ুন আহমেদের বই পুড়ায়া ফেলা দরকার। পোলাপান তাঁর বই পড়ে পাগল হয়ে যাচ্ছে।’ কিন্তু আমি জানি, আমার ৭৫ বছরের দাদু কথাটা মন থেকে বলেনি, কারণ সে-ও হুমায়ুন আহমেদের ভক্ত। হুমায়ুন আহমেদ সকল বয়সের মানুষের কাছেই প্রিয় ছিলেন, আছেন এবং থাকবেন চিরকাল।
তো কি হয়েছে বলি, আমি চিঠিটা প্লাস্টিকের বোতলে ভরে মুখবন্ধ করে সেই গর্তে মাটিচাপা দিয়েছি। এই আশায় যে, ভবিষত্যের মানুষেরা এই বোতল উদ্ধার করে হুমায়ুন আহমেদ সম্পর্কে জানতে পারবে।
আমার আজকে অসম্ভব মন খারাপ ছিলো, কারণ তিনি নেই। আসলে তাঁর মতো মহান সাহিত্যিক একশো বছরে মাত্র একজনই জন্মান।আমাদের উচিত তাঁর বইগুলো বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ করে বিশ্বের সকল মানুষের কাছে পরিচিত করা।আমি বিশ্বাস করি, হিমু সিরিজের বইগুলি হ্যারি পটারের বইগুলো থেকেও জনপ্রিয়তা পাবে। জে কে রাওলিং-ও হুমায়ুন আহমেদের মত ভালো লিখেনা।তাঁর বইগুলো এখন থেকেই সংরক্ষণের ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। তাহলে ভবিষ্যতে কাজে দেবে।সৃষ্টিকর্তার কাছে এখন আমাদের একমাত্র আবদার তিনি যেন আমাদের প্রিয় লেখককে ভালো রাখেন।
হে মহান সৃষ্টিকর্তা, আমরা যেন আমাদের দেশে সবচেয়ে ভালো ক্যান্সার হাসপাতাল গড়ে তুলতে পারি, তাঁর শেষ ইচ্ছাগুলোও যেন পূরণ করতে পারি।(আমার দাদাভাই ডক্টর ছিলেন, তিনিও ক্যান্সারে ভুগে চলে গেছেন।)শাওন কিন্তু একা একা তাঁর ইচ্ছাগুলো পূরণ করতে পারবেনা। হিমু এবং হুমায়ুন ভক্তরা, চলো আমরা তাঁর শেষ ইচ্ছাগুলো পূরণে এগিয়ে আসি। আমরা ভক্তরাই পারবো তাঁর আত্মার শান্তি দিতে।
শ্রদ্ধেয় হুমায়ুন আহমেদ,আপনার বাড়ি এখন মেঘের উপর হলেও আপনি একা নন, আপনি চিরকাল আমাদের মাঝে বেঁচে থাকবেন।আমরা আছি আপনার পাশে। আপনি যেখানেই থাকুন না কেন, আপনি ভালো থাকবেন।সৃষ্টিকর্তা আপনাকে ভালো রাখবেন। আসসালামুআলাইকুম।
আজকাল পত্রিকা (কানাডা) ১৩ই ডিসেম্বর ২০১৩

Advertisements